দিহানের গাড়ির হর্নে কেঁপে উঠতো গলি

News News

Desk

প্রকাশিত: ১১:১৩ পূর্বাহ্ণ, জানুয়ারি ১৩, ২০২১

আবদার মেটাতে ১৬ বছর বয়সেই দিহানকে তিন লাখ টাকা দিয়ে সুজুকি বাইক কিনে দিয়েছিলেন বাবা। এরপরই  গাড়ি কিনে দেয়ার বায়না করে বসে দিহান। বাধ্য হয়ে ছেলের পছন্দ অনুযায়ী ২০১৯ সালে ১৪ লাখ টাকা ব্যয়ে কিনে দেন টয়োটা এক্সিও।

কলাবাগান এলাকার দিহানদের প্রতিবেশী ও এলাকাবাসীর সঙ্গে কথা বলে এমন তথ্যই জানা গেছে। তাদের তথ্য মতে, দিহানের সরকারি চাকরিজীবী বাবা তার সব ইচ্ছাই পূরণ করার চেষ্টা করেছেন।

তারা জানান, আনুশকা ধর্ষণ ও হত্যা মামলার আসামি দিহানের একাধিক ঘনিষ্ঠ বান্ধবী ছিল। মূলত এসব বান্ধবীর পেছনেই সাবেক সাব রেজিস্ট্রার বাবার অর্থকড়ি দুই হাতে উড়াতেন দিহান। বাবাও কখনো কোনো কিছুতে বাধা দিতেন না।

কলাবাগান এলাকার রাস্তার পাশের দোকানিরা জানান, দিহান যখন গাড়ি নিয়ে বের হতেন। তখন গলি কেঁপে উঠত। নিজের ইচ্ছেমতো বাজাতেন একেরপর এক গাড়ির হর্ন।

বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমের অনুসন্ধানে বেরিয়ে এসেছে, ইংরেজি মাধ্যমের আরো অনেক তরুণীর সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ ছিল দিহানের। লং ড্রাইভে বেরিয়ে দিহান তার বন্ধুদের সঙ্গে মদ ও অন্যান্য মাদক সেবন করতেন। রাতভর বিভিন্ন বন্ধুর ছাদে মদ ও মাদকের আড্ডাও চলত। থার্টি ফার্স্ট নাইটে রাতভর হোটেলে সময় কাটিয়েছেন দিহান।

আনুশকাকে ধর্ষণ ও হত্যার দিনটিতেও লেক সার্কাসের বাসায় ডেকে নেয় দিহান। দিহানের বাবা এ সময় ছিলেন রাজশাহীতে। মেজো ভাই ছিলেন নারায়ণগঞ্জে। অসুস্থ নানাকে দেখতে বগুড়ায় ছিলেন মা। আর দিহান বাসা খালির এ সুযোগটিকেই কাজে লাগায়।

এদিকে মামলার এজাহারেও এখন পর্যন্ত মামলার তদন্তে এ ঘটনায় শুধু দিহান জড়িত থাকার বিষয়টি উল্লেখ থাকলেও আনুশকার বাবা দাবি করছেন ঘটনা একা ঘটায়নি দিহান। আনুশকাকে যেভাবে পাশবিক নির্যাতন করা হয়েছে এতে আরও কেউ জড়িত রয়েছে বলেও অভিযোগ তার।

প্রসঙ্গত, ৭ জানুয়ারি রাজধানীর কলাবাগানে বন্ধু ইফতেখার ফারদিন দিহানের বাসায় গিয়ে মারা যান মাস্টারমাইন্ড স্কুলের ‘ও’ লেভেলের এক শিক্ষার্থী। এ ঘটনায় ওই দিনই মেয়েকে ধর্ষণের পর হত্যার অভিযোগে দিহানকে আসামি করে কলাবাগান থানায় মামলা করেন মেয়েটির বাবা মো. আল আমিন। পরে দিহান ও তার তিন বন্ধুকে কলাবাগান থানা পুলিশ আটক করে।

জিজ্ঞাসাবাদ শেষে বাকি তিনজনকে ছেড়ে দিয়ে দিহানকে এ মামলায় গ্রেফতার দেখানো হয়। শুক্রবার আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয় দিহান। বর্তমানে সে কারাগারে রয়েছে। দিহানের ডিএনএ পরীক্ষার অনুমতি দিয়েছে আদালত।