গভীর রাতে দুবৃত্ত্বের দেয়া আগুনে ৬টি ঘর পুড়ে ভস্মীভূত

গভীর রাতে দুবৃত্ত্বের দেয়া আগুনে ৬টি ঘর পুড়ে ভস্মীভূত

News News

Desk

প্রকাশিত: ১১:৩২ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ১০, ২০২০
আল-আমীন, শরীয়তপুর প্রতিনিধিঃ

দূর্বৃত্ত্বরা ওই বাড়ির ঘর গুলোতে বাহির থেকে দরজায় ছিটকানি দিয়ে অগ্নিসংযোগ করে পালিয়ে যায়। এতে তিনটি পরিবারের মালামাল আসবাবপত্র সব পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। এমনকি গবাদি পশু, ছাগল আর হাঁস, মুরগী পুড়ে আঙ্গার হয়েছে। কোন কিছুই রক্ষা করতে পারেনি ওই পরিবারের সদস্যরা।
এ লোমর্হষক ঘটনাটি ঘটেছে ৯ ডিসেম্বর বুধবার রাত ১২টার শরীয়তপুর জেলার গোসাইরহাট উপজেলার নাগেরপাড়া ইউনিয়নের উত্তর ভদ্রচাপ গ্রামের আলগীর সারেং এর বাড়িতে । ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের সদস্যরা ২ ঘন্টা চেষ্টা চালিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। ঘটনা পরবর্তীতে গোসাইরহাট থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শণ করেছেন।। ঘটনার সাথে জড়িতদের বিরুদ্ধে মামলা করবেন বলে জানিয়েছে ক্ষতিগ্রস্থ পরিবার। এতে এলাকার মানুষের মাঝে আতংক ছড়িয়ে পড়েছে। বছর খানেক আগেও ওই গ্রামে একই ভাবে দুটি বাড়িতে অগ্নিসংযোগ করা হয়েছিল।

ঘটনাস্থলে গিয়ে ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের সাথে কথা বলে জানাগেছে, তিন বছর পূর্বে স্থানীয় দ্বন্দ্বের জেরে ইউপি সদস্য নজরুল ইসলাম মুন্সীকে হত্যা করা হয়। হত্যা মামলার আসামী পক্ষের আলমগীর মুন্সী, জামাল মুন্সী, আবুবকর ফরাজী ও রিজিয়া বেগমের বসত ঘর সহ ৬টি ঘর পুড়িয়ে দিয়েছে হত্যা মামলার বাদী পক্ষ ও সাক্ষিরা। গভীর রাতে প্রতিটি ঘরের দরজা বাহির থেকে বন্ধ করে দিয়ে এই অগ্নিকান্ড ঘটানো হয় বলে জানান তারা।
প্রত্যক্ষদর্শী মোশারফ সারেং জানায়, লোকজনের ডাক চিৎকারে তার ঘুম ভেঙ্গে যায়। বের হয়ে দেখে তার চাচাতো ভাই আলমগীরের ঘরে আগুন জ্বলতেছে। তখন তিনি নজরুল মুন্সী হত্যা মামলার বাদী পক্ষের আজিম, তাজিম, মিলন, লিটন, নয়ন, শয়ন, সুমনদের ছেন-দা হাতে পালিয়ে যেতে দেখে। তিনি ধারণা করছেন পালিয় যাওয়া লোকেরা ঘরে আগুন লাগিছে। আগুনে পুড়ে ৪টি বসত ঘর ও ২টি গোয়াল ঘর সহ ১টি গরু, ৪টি ছাগল ও ৩০টি হাঁস মুরগির পুড়ে যায়। এতে প্রায় ১০ লক্ষ টাকা পরিমান ক্ষতি সাধণ হয়েছে। এই বিষয়ে তারা মামলা করবেন।
মজিবর রহমান সারেং জানায়, এদের কাজই মানুষের ঘরে আগুন দিয়ে ক্ষতি করা। এরা প্রথমে শাহালম তালুকদার, হানিফ মাল ও মোতাহার চৌকিদারের ঘরে আগুন দেয়। পরে আমাদের বাড়িতে আগুন দিয়ে এই ক্ষতি করেছে।
নজরুল মুন্সী হত্যা মামলার বাদী পক্ষে লাভলী বেগম জানায়, আমাদের ৩ একর জমি হত্যা মামলার আসামীরা জোর করে খায়। প্রতিবাদ করায় আমার ভাই নজরুল মুন্সীকে আসামীরা নির্মমভাবে কুপিয়ে হত্যা করে। জমির বিষয়ে আগামী শনিবার সালিশী বসার কথা। যাতে সালিশীতে বসতে না হয় তাই নিজেরাই এই অগ্নি কান্ডের ঘটনা ঘটিয়েছে। আমদের কেউ এই অগ্নি কান্ডের ঘটনা ঘটায় নাই।
গেসাইরহাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোল্লা সোয়েব আলী জানিয়েছেন কিভাবে এ অগ্নিকান্ডের সূত্রপাত হয়েছিল তা এখনি স্পষ্ট ভাবে বলতে পারছি না। তদন্ত করে আগ্নিকান্ডের আসল রহস্য উদঘাটন করা হবে।