আজ দেশবরেণ্য শিক্ষাবিদ প্রফেসর মযহারুল ইসলামের মৃত্যুবার্ষিকী

News News

Desk

প্রকাশিত: ৩:০৫ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ১৫, ২০২০
এসএমএ কামাল পারভেজ, সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি:

আজ (১৫ নভেম্বর) দেশবরেণ্য বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ, কবি, পণ্ডিত, গবেষক আন্তর্জাতিক খ্যাতি সম্পন্ন ফোকলোর বিশারদ, সংস্কৃতিকর্মী, মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক, জাতির পিতার ঘনিষ্ঠ সহচর প্রফেসর ড. মযহারুল ইসলামের ১৭তম মৃত্যুবার্ষিকী।

এ উপলক্ষ্যে তার গ্রামের বাড়ি শাহজাদপুর, ঢাকার বনানী, পারিবারিক শিল্প প্রতিষ্ঠান ময়মনসিংহের ভালুকার তেপান্তরে বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করেছে।

ডঃ মযহারুল ইসলাম ১৯২৮ সালের ১০ সেপ্টেম্বর সিরাজগঞ্জ জেলার শাহজাদপুর উপজেলার চরনবীপুর গ্রামে জন্ম গ্রহণ করেন। তিনি তালগাছী আবু ইসহাক উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ১৯৪৫ সালে মেট্রিক এবং ১৯৪৭ সালে সিরাজগঞ্জ কলেজ থেকে কৃতিত্বের সাথে আই,এ পাশ করে রাজশাহী সরকারি কলেজে বাংলা অনার্সে ভর্তি হন।
১৯৪৯ সালে অনার্স পরীক্ষায় তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রথম শ্রেণীতে প্রথম স্থান অধিকার করেন।
এরপর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১৯৫০ সালে প্রিভিয়াস (এম,এ বাংলা) এবং ১৯৫১ সালে অনুষ্ঠিত এম,এ ফাইনাল পরীক্ষায় তিনি প্রথম বিভাগে প্রথম স্থান অধিকার করেতিনি গোল্ড মেডালিষ্ট এবং কালীনারায়ণ স্কলারের গৌরব অর্জন করেন।

১৯৫২ সালের প্রথম দিকে তিনি ঢাকা কলেজে বাংলা বিভাগের লেকচারার পদে যোগদান করেন। ১৯৫৩ সালে মেধার ভিত্তিতে তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে বাংলা বিভাগে সিনিয়র লেকচারার এবং ১৯৫৬ সালের গোড়ার দিকে ডঃ মযহারুল ইসলাম রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগে সিনিয়র লেকচারার হিসেবে যোগদান করেন। ১৯৫৮ সালে ডঃ মুহম্মদ শহীদুল্লাহর তত্ত্বাবধানে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে তিনি প্রথম এবং ১৯৬৩ সালে আমেকিার ইন্ডিয়ানা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে দ্বিতীয় পি,এইচ,ডি ডিগ্রি লাভের পর এক বছর তিনি আমেরিকার শিকাগো ইউনিভার্সিটিতে ভিজিটিং প্রফেসর হিসেবে অধ্যাপনা করেন। ১৯৬৪ সালে দেশে ফিরে তিনি পুনরায় রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে যোগদান করেন এবং পরবর্তীতে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস চ্যান্সেলর হিসেবে অবসর গ্রহণ করেন।
বঙ্গবন্ধুর আহ্বানে স্বাধীনতা পরবর্তী বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক হিসেবেও তিনি দায়িত্ব পালন করেন।
রাজনীতি সচেতন জনাব ইসলাম ভাষা আন্দোলন এবং মহান মুক্তিযুূ্দ্ধে সক্রিয় অংশগ্রহণ করেন।

আন্তর্জাতিক খ্যাতি সম্পন্ন ফোকলোর বিশারদ এবং দেশবরেণ্য শিক্ষাবিদ প্রফেসর ডঃ মযহারুল ইসলাম ২০০৩ সালের আজকের এই দিনে ( ১৫ নভেম্বর) সকাল ৮-১১ মিনিটে ব্যাংককের বামরুনগ্রাদ হাসপাতালে স্ত্রী, ৪ সন্তান সহ অসংখ্য গুণগ্রাহীকে রেখে শেষ নি:শ্বাস ত্যাগ করেন।

ডঃ ইসলামের তার চার সন্তানরা হলেন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য ও ঢাকা বদরুন্নেসা মহিলা কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ প্রফেসর মেরিনা জাহান কবিতা, বিশিষ্ট শিল্পপতি ও সাবেক সংসদ সদস্য চয়ন ইসলাম, যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী প্রফেসর ড. ছন্দা ইসলাম এবং বিশিষ্ট কম্পিউটার বিজ্ঞানী ও শিল্পপতি শোভন ইসলাম।