মহিপুর ইউনিয়ন নির্বাচনে ২নং ওয়ার্ডে জনপ্রিয়তায় মেম্বার পদ প্রার্থী সুলতান খান

News News

Desk

প্রকাশিত: ১০:২২ পূর্বাহ্ণ, অক্টোবর ১৮, ২০২০

মোঃ ইমরান:

আসন্ন মহিপুরে ইউপি নির্বাচনে জনপ্রিয়তার শীর্ষে মোঃ সুলতান খান। মহিপুর থানা সদর ইউনিয়ন পরিষদ মেম্বার নির্বাচনে পদপ্রার্থী। মহিপুর সদর এর ২নং ওয়ার্ড মেম্বার পদপ্রার্থী হিসেবে ব্যাপক জনপ্রিয়তার শীর্ষে রয়েছেন, বলে মন্তব্য করেন তিনি।

জনসেবার কারণে সাধারণ মানুষের কাছে তিনি অত্যন্ত আস্থাভাজন ব্যক্তি হিসেবে ব্যাপক সু-পরিচিতি লাভ করেছেন এবং একজন উদীয়মান রাজনীতিবিদ হিসেবে।

জনপ্রতিনিধি না হয়েও দীর্ঘদিন ধরে তিনি নিজেকে ব্যস্ত রেখেছেন সাধারণ মানুষের সেবায়।

সাধ্য অনুযায়ী সাহায্য করেছেন সাধারণ মানুষের। ভয়াবহ ঘূর্ণিঝড় আম্পানে ও মহামারী করোনায় ছিলেন সাধারণ মানুষের সাথে।

করোনার এই মহা দুর্যোগেও তিনি শুরু থেকে নিজ উদ্যোগে তার সাধ্য অনুযায়ী সাধারণ মানুষের পাশে থেকে বিভিন্ন ধরনের সাহায্য সহযোগিতা করে গেছেন । তিনি নিজেকে মানুষের সেবায় উৎসর্গ করে দিতে চান।

স্থানীয় সাধারণ জনগণ বলেন মহিপুর ইউনিয়নের রাস্তা ঘাটের বেহাল দশা, দেশের সর্বত্র ব্যাপক উন্নয়ন হলেও এই ওয়ার্ডে রয়ে গেছে অবহেলিত অথচ এই ওয়ার্ডে রয়েছে পটুয়াখালী জেলার নদীর তীরে বৃহত্তর মহিপুর বাজার, পাবলিক টয়লেট বিহীন হাজারো ব্যাবসায়ীর বসবাস। যার কারণে এই অবহেলিত ওয়ার্ডের উন্নয়নের জন্য তার মতো একজন জনপ্রতিনিধি চায় সাধারণ জনগণ।

স্থানীয়রা আরো বলেন তিনি তাদের সকল বিপদে আপদে এগিয়ে আসেন। রাত-দিন যখনই চাই আমরা তাকে পাশে পাই। আসন্ন ২০ অক্টোবর মহিপুর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে দলমত নির্বিশেষে উন্নয়নের স্বার্থে সমাজসেবক মোঃ সুলতান খান কে ২নং ওয়ার্ড মেম্বার হিসেবে দেখতে চাই।

দল-মত নির্বিশেষে সকল শ্রেণি-পেশার মানুষ তার আচার-ব্যবহারে মুগ্ধ। তাছাড়া তিনি বিভিন্ন সামাজিক কর্মকাণ্ডে স্বেচ্ছাসেবী হিসেবে নিবেদিত প্রান।তিনি বিভিন্ন সামাজিক প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে মানুষের সেবা ও ব্যক্তিগতভাবে এলাকার অসহায়-গরীবদের সেবায় নিজেকে নিয়োজিত রেখেছেন। তিনি বিভিন্ন উন্নয়নমূলক সংগঠনের সাথেও সম্পৃক্ত রয়েছেন।

এবং তিনি নিজ অর্থায়নে শতাধিক এর অধিক দরিদ্র পরিবার কে সাহায্য সহযোগিতা করেন।

২ নং ওয়ার্ড মেম্বার পদপ্রার্থী মোঃ সুলতান খান বলেন, আমাকে যদি জনগণ সুযোগ দেয় তাহলে আমি নির্বাচিত হয়ে প্রথমে অবহেলিত ২নং ওয়ার্ডের রাস্তাঘাট নির্মাণ করবো এবং যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়ন ঘটাবো। এই ইউনিয়নকে উন্নয়ন ও রোল মডেল হিসাবে জাতির কাছে তুলে ধরবো। সর্বশেষ তিনি এ-ই আশা ব্যক্ত করেন ভোটার’রা যেন স্বতঃস্ফুর্ত ভাবে কেন্দ্রে গিয়ে ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারেন।