অস্ত্র মামলায় পাঁচজন সাক্ষী দিলো পাপিয়া-সুমনের বিরুদ্ধে।

News News

Desk

প্রকাশিত: ৬:৫৮ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ২, ২০২০

অনলাইন ডেস্ক : অস্ত্র আইনে দায়ের করা মামলায় যুব মহিলা লীগের বহিষ্কৃত নেত্রী শামীমা নূর পাপিয়া ও তার স্বামী মফিজুর রহমান ওরফে সুমন চৌধুরীর বিরুদ্ধে আরও পাঁচজন সাক্ষ্য দিয়েছেন।

বুধবার ঢাকার মহানগর এক নম্বর বিশেষ ট্রাইব্যুনালের বিচারক কে এম ইমরুল কায়েশের আদালতে তারা সাক্ষ্য দেন।

এরপর তাদেরকে জেরা করেন আসামিপক্ষের আইনজীবী শাখাওয়াত হোসেন।

বুধবার যারা সাক্ষ্য দিয়েছেন তারা হলেন- এএসআই সুমন মিয়া, কনস্টেবল ফারুক হোসেন, আলেয়া খাতুন, সঙ্গীয় ফোর্স জীবন চন্দ্র ও বাড়ির ম্যানেজার দীপ্ত দাস।

এ নিয়ে মামলার ১২ সাক্ষীর মধ্যে সাতজনের সাক্ষ্যগ্রহণ শেষ হয়েছে।

এদিন মামলার জব্দ তালিকার সাক্ষী র‌্যাবের উপ-পরিদর্শক সাইফুল আলমকে জেরা করেন আসামিপক্ষের আইনজীবী।

বিচারক পরবর্তী সাক্ষ্যগ্রহণের জন্য বৃহস্পতিবার দিন রেখেছেন।

গত ২৩ অগাস্ট একই বিচারক আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন।

পাপিয়া ও সুমনের বিরুদ্ধে অস্ত্র মামলায় সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু  

গত ২২ ফেব্রুয়ারি হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে দেশত্যাগের সময় পাপিয়াসহ চারজনকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব। গ্রেপ্তার অন্যরা হলেন- পাপিয়ার স্বামী মফিজুর রহমান ওরফে সুমন চৌধুরী ওরফে মতি সুমন, সাব্বির খন্দকার ও শেখ তায়্যিবা।

তাদের কাছ থেকে সাতটি পাসপোর্ট, দেশি-বিদেশি মুদ্রা জব্দ করা হয়। ওইদিন রাতেই পাপিয়ার নরসিংদী বাসা এবং ২৩ ফেব্রুয়ারি ভোরে হোটেল ওয়েস্টিনে তাদের নামে বুকিং করা বিলাসবহুল প্রেসিডেন্সিয়াল স্যুটে অভিযান চালানো হয়।

এছাড়া ফার্মগেট এলাকার ২৮ নম্বর ইন্দিরা রোডে পাপিয়া-সুমনের দুটি ফ্ল্যাটে অভিযান চালিয়ে একটি বিদেশি পিস্তল, দুটি ম্যাগজিন, ২০টি গুলি, বিদেশি মদসহ বিভিন্ন জিনিস জব্দ করে র‌্যাব।

ওই ঘটনায় শেরেবাংলা নগর থানায় অস্ত্র আইনে একটি, বিশেষ ক্ষমতা আইনে একটি এবং বিমানবন্দর থানায় বিশেষ ক্ষমতা আইনে আরেকটি মামলা হয়।

গত ২৯ জুন ঢাকা মহানগর হাকিম আদালতে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা র‌্যাবের উপ-পরিদর্শক আরিফুজ্জামান শেরেবাংলা নগর থানার অস্ত্র আইনের মামলায় অভিযোগপত্র জমা দেন।

বিজয়ের বাংলাদেশ”/ এআর